Muntakhab Hadith

 
 
SIFAT
Ikhlas  
SECTION
Sincerity of Intention  
Type
Hadith  
SERIAL NUMBER
8  
الحديث فى العربى
عَنْ عَبْدِاللهِ بْنِ عُمَرَ رَضِىَ اللهُ عَنْهُمَا قَالَ : سَمِعْتُ رَسُوْلَ اللهِ ﷺ يَقُوْلُ : انْطَلَقَ ثَلاَثَةُ رَهْطٍ مِمَّنْ كَانَ قَبْلَكُمْ حَتّىٰ أَوَوُا الْمَبِيْتَ إِلىٰ غَارٍ فَدَخَلُوْهُ ، فَانْحَدَرَتْ صَخْرَةٌ مِنَ الْجَبَلِ فَسَدَّتْ عَلَيْهَا الْغَارَ ، فَقالُوا : إِنَّهُ لاَ يُنْجِيْكُمْ مِنْ هٰذِهِ الصَّخْرَةِ إِلاَّ أَنْ تَدْعُوا اللهَ بِصَالِحِ أَغْمَالِكُمْ ، فَقَالَ رَجُلٌ مِنْهُمْ : اللهُمَّ ! كَانَ لِىْ أَبَوَانِ شَيْخَانِ كَبِيْرَانِ ، وَكُنْتُ لاَ أَغْبِقُ قَبْلَهُمَا أَهْلاً وَلاَ مَالاً ، فَنَأَى بِىْ فِىْ طَلَبِ شَىْءٍ يَوْمًا فَلَمْ أُرِحْ عَلَيْهِمَا حَتّىٰ نَامَا ، فَحَلَبْتُ لَهُمَا غَبُوْقَهُمَا فَوَجَدْتُهُمَا نَائِمَيْنِ ، فَكَرِهْتُ أَنْ أَغْبِقَ قَبْلَهُمَا أَهْلاً أَوْ مَالاً ، فَلَبِثْتُ وَالْقَدَحُ عَلىٰ يَدَىَّ أَنْتَظِرُ اسْتِيْقَا ظَهُمَا حَتّىٰ بَرَقَ الْفَجْرُ فَاسْتَيْظَا فَشَرِبَا غَبُوْقَهُمَا ، اللهُمَّ إِنْ كُنْتُ فَعَلْتُ ذٰلِكَ ابْتِغَاءَ وَجْهِكَ فَفَرِّجْ عَنَّا مَا نَحْنُ فِيْهِ مِنْ هٰذِهِ الصَّخْرَةِ ، فَانْفَرَجَتْ شَيْئًا لاَ يَسْتَطِيْعُوْنَ الْخُرْوُجَ ، قَالَ النَّبِىُّ ﷺ : وَقَالَ الاَخَرُ : اللهُمَّ ! كَانَتْ لِىْ بِنْتُ عَمٍّ ، كَانَتْ أَحَبَّ النَّاسِ إِلَىَّ فَأَرَدْتُهَا عَنْ نَفْسِهَا ، فَامْتَنَعَتْ مِنِّىْ حَتّىٰ أَلَمَّتْ بِهَا سَنَةٌ مِنَ السِّنِيْنَ ، فَجَاءَ تْنِىْ فَأَرَعْطَيْتُهَا عِشْرِيْنَ وَمِائَةَ دِيْنَارٍ عَلىٰ أَنْ تُخَلِّىَ بَيْنِىْ وَبَيْنَ نَفْسِهَا فَفَعَلَتْ حَتّىٰ إِذَا قَدَرْتُ عَلَيْهَا قَلَتْ : لاَ أُحِلَّ لَكَ أَنْ تَفُضَّ الْخَاتَمَ إِلاَّ بِحَقِّهِ ، فَتَحَرَّجْتُ مِنَ الْوُقُوْعِ عَلَيْهَا فَانْصَرَفْتُ عَنْهَا وَهِىَ أَحَبُّ النَّاسِ إِلَىَّ ، فَتَرَكْتُ الذَّهَبَ الَّذِىْ أَعْطَيْتُهَا ، اللهُمَّ إِنْ كُنْتُ فَعَلْتُ ذٰلِكَ ابْتِغَاءَ وَجْهِكَ فَافْرُجْ عَنَّا مَا نَحْنُ فِيْهِ ، فَانْفَرَجَتِ الصَّخْرَةُ غَيْرَ أَنَّهُمْ لاَ يَسْتَطِيْعَوْنَ الْخُرُوْجَ مِنْهَا ، قَالَ النَّبِىُّ ﷺ : وَقَالَ الثَّالِثُ اللهُمَّ ! إِنِّىْ اسْتَأْجَرْتُ أُجَرَاءَ ، فَأَعْطَيْتُهُمْ أَجْرَهُمْ غَيْرَ رَجُلٍ وَاحِدٍ ، تَرَكَ الَّدِىْ لَهُ وَذَهَبَ ، فَثَمَّرْتُ أَجَرَاهُ حَتّىٰ كَثُرَتْ مِنْهُ الأَمْرَالُ ، فَجَاءَ نِىْ بَعْدَ حِيْنٍ فَقَالَ : يَا عَبْدَ اللهِ ! أَدِّ إِلَىَّ أَجْرِىْ ، فَقُلْتُ لَهُ : كُلَّ مَا تَرَى مِنْ أَجْرِكَ مِنَ الإِبِلِ وَالْبَقَرِ وَالْغَنَمِ وَالرَّقِيْقِ ، فَقَالَ : يَا عَبْدَاللهِ ! لاَ تَسْتَهْزِئْ بِىْ فَقُلْتُ : إِنِّىْ لاَ أَسْتَهْزِئُ بِكَ ، فَأَخَذَهُ كُلَّهُ فَاسْتَاقَهُ فَلَمْ يَتْرُكْ مِنْهُ شَيْئًا ، اللهُمَّ ! فَإِنْ كُنْتُ فَعَلْتُ ذٰلِكَ ابْتِغَاءَ وَجْهِكَ فَافْرُجْ عَنَّا مَا نَحْنُ فِيْهِ ، فَانْفَرَجَتِ الصَّخْرَةُ فَخَرَ جُوْا يَمْشُوْنَ . ( رواه البخارى ، باب من استاجر اجير افترك اجره ،... .... رقم : )  
হাদিস বাংলা
হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রাযি:) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এই এরশাদ করিতে শুনিয়াছি, তোমাদের পূর্ববর্তী কোন উম্মতের তিন ব্যক্তি (এক সঙ্গে সফরে) বাহির হইল, (চলিতে চলিতে রাত্র হইয়া গেল) তখন রাত্রি যাপনের জন্য এক গুহায় প্রবেশ করিল। এই সময় পাহাড় হইতে একটি বিরাট পাথর আসিয়া পড়িল এবং গুহার মুখ বন্ধ করিয়া দিল। (ইহা দেখিয়া) তাহারা বলিল, এই পাথর হইতে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র উপায় হইল সকলেই নিজ নিজ নেক আমলের উসীলায় আল্লাহ তায়ালার নিকট দোয়া কর। (অতএব তাহারা নিজ নিজ আমলের উসীলায় দোয়া করিল।) তাহাদের মধ্য হইতে এক ব্যক্তি বলিল, হে আল্লাহ (আপনি জানেন) আমার বৃদ্ধ পিতামাতা ছিল। আমি তাহাদিগকে দুধপান করাইবার পূর্বে আমার স্ত্রী সন্তান ও গোলাম বাঁদীকে দুধপান করাইতাম না। একদিন কোন একটি জিনিসের তালাশে আমাকে অনেক দূরে যাইতে হইল। ফিরিয়া আসিতে আসিতে আমার পিতামাতা ঘুমাইয়া পড়িলেন। (তবুও) আমি তাহাদের জন্য সন্ধ্যার দুধ দোহাইয়াছি এবং দুধ পাত্রে লইয়া তাহাদের খেদমতে হাজির হইয়াছি, তখন দেখিলাম তাহারা (তখনও) ঘুমাইতেছেন। তাহাদিগকে জাগ্রত করা পছন্দ হইল না এবং তাহাদিগকে দুধপান করানোর পূর্বে স্ত্রী সন্তান ও গোলাম বাঁদীকে পান করাইতেও চাহিলাম না। অতএব দুধের পেয়ালা হাতে লইয়া তাহাদের শিয়রে দাঁড়াইয়া তাহাদের জাগ্রত হওয়ার অপেক্ষা করিতে লাগিলাম। এইভাবে ফজর হইয়া গেল। অত:পর তাহারা জাগ্রত হইলেন (আমি তাহাদিগকে দুধ দিলাম) তখন তাহারা নিজেদের সন্ধ্যার অংশের দুধপান করিলেন। হে আল্লাহ যদি এই কাজ শুধু আপনার সন্তুষ্টির জন্য করিয়া থাকি তবে এই পাথরের কারণে আমরা যে বিপদে আটকাইয়া আছি উহা হইতে আমাদিগকে নাজাত দান করুন। এই দোয়ার ফলে পাথর কিছুটা সরিয়া গেল কিন্তু বাহিরে আসা সম্ভব হইল না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন, দ্বিতীয় ব্যক্তি দোয়া করিল, আয় আল্লাহ, আমার এক চাচাতো বোন ছিল, যে আমার নিকট সবচেয়ে প্রিয় ছিল। আমি (একবার) তাহার সহিত আমার মনের খাহেশ মিটাইবার ইচ্ছা করিলাম, কিন্তু সে রাজি হইল না। অবশেষে এমন এক সময় আসিল যে,দুর্ভিক্ষ তাহাকে (আমার নিকট) আসিতে বাধ্য করিল। আমি তাহাকে এই শর্তে একশত বিশ দিনার দিলাম যে, সে নির্জনে আমার সহিত সাক্ষাত করিবে। সে রাজি হইয়া গেল। যখন আমি তাহাকে নিজের আয়ত্বে পাইলাম (এবং নিজের খাহেশ পূর্ণ করিতে উদ্যত হইলাম।) এমন সময় সে বলিল, আমি তোমার জন্য ইহা হালাল মনে করি না যে,তুমি এই মোহরকে অন্যায়ভাবে ভাঙ্গ। (ইহা শুনিয়া) আমি নিজের খারাপ এরাদা হইতে বিরত হইয়া গেলাম এবং তাহার নিকট হইতে দূরে সরিয়া গেলাম। অথচ তাহার প্রতি আমার যথেষ্ট মহব্বত ছিল এবং আমি সেই স্বর্ণের দীনারও ছাড়িয়া দিলাম, যাহা তাহাকে দিয়াছিলাম। হে আল্লাহ যদি এই কাজ আপনার সন্তুষ্টির জন্য করিয়া থাকি তবে আমাদের এই মুসীবতকে দূর করিয়া দিন। ফলে পাথর আরো কিছুটা সরিয়া গেল, কিন্তু (তারপরও) বাহির হওয়া সম্ভব হইল না। তৃতীয় ব্যক্তি দোয়া করিল, আয় আল্লাহ, আমি কিছু মজদুর কাজের জন্য রাখিয়াছিলাম। সকলকে আমি মজুরী দিয়াছি, শুধু একজন নিজের মজুরী না লইয়াই চলিয়া গিয়াছিল। আমি তাহার মজুরীর পয়সা ব্যবসায় লাগাইয়া দিলাম। যাহাতে মাল বৃদ্ধি পাইয়া অনেক হইয়া গেল। কিছুদিন পর সে একদিন আসিয়া বলিল, হে আল্লাহর বান্দা, আমাকে আমার মজুরী দিয়া দাও। আমি বলিলাম, এই উট, গরু, বকরী ও গোলাম, যাহা তুমি দেখিতেছ সবই তোমার মজুরী। অর্থাৎ তোমার মজুরী ব্যবসায় খাটাইয়া এই মুনাফা অর্জিত হইয়াছে। সে বলিল, হে আল্লাহর বান্দা, ঠাট্টা করিও না। আমি বলিলাম, ঠাট্টা করিতেছি না। (সত্যই বলিতেছি।) অতএব (ঘটনা খুলিয়া বলার পর) সে সমুদয় মাল লইয়া গেল। কিছুই ছাড়িল না। হে আল্লাহ, যদি আমি এই কাজ শুধু আপনার সন্তুষ্টির জন্য করিয়া থাকি তবে এই মুসীবত যাহাতে আমরা আটকা পড়িয়াছি দূর করিয়া দিন। সুতরাং সেই পাথর সম্পূর্ণ সরিয়া গেল (এবং গুহার মুখ খুলিয়া গেল)। আর তাহারা সকলে বাহির হইয়া আসিল।(বোখারী)   
HADITH ENGLISH
Abdullah ibn 'Umar Radiyallahu 'anhuma narrates: I heard Rasulullah Sallallahu 'alaihi wasallam saying: Three people (of an Ummah) before you, set out on a journey and they took refuge in a cave to spend the night. A rock slid from the mountain and blocked the cave. They said: Indeed you cannot be relieved from this rock, except that you invoke Allah on the basis of your good deeds. So one of them said: O Allah! I had very aged parents and I would not give milk to my children and other members of my family and slaves before my parents. One day I went far away in quest of something and I could not return to my parents before they had slept. I milked the evening milk for them and found that they were asleep. I disliked to give milk to my children and other members of my family and slaves to drink before them. So I stood by them, with the bowl of milk in my hand, waiting for them to wake up till it dawned. Then they woke up and they drank their evening's share of the milk. O Allah! If I had done so to please You, relieve us from the distress imposed upon us by this rock. So the rock moved a little resulting in a small opening; but not enough for them to get out.@ +@Nabi Sallallahu 'alaihi wasallam then said that the second man said: O Allah! I had a cousin, whom I loved more than anybody. I desired to satisfy my lust with her, but she refused. Subsequently, a year of famine forced her to approach me. I gave her one hundred and twenty Dinars on the condition that she would yield herself to me. So she agreed and when I was able to get a hold on her she said: It is not permitted for you to break the seal of virginity except by its lawful right (that, is by marriage). I restrained myself from falling upon her and I walked away from her, though she was the most beloved of people to me, and I left the Dinars with her. O Allah! If I had done so to please You, then relieve us from the distress that we are suffering. So again the rock moved a little resulting in a small opening; but they were still unable to get out.@ +@Nabi Sallallahu 'alaihi wasallam then said that the third one invoked: O Allah! I hired the services of some labourers and paid all of them their wages except one, who departed without taking what was due to him. I invested his wage in a business and the business prospered immensely. He came back to me after a long time and said: O slave of Allah! Pay me my due. I replied: All that you see is yours: camels, cattle, sheep and slaves. He said: O slave of Allah! Do not make fun of me. So I said: I am not joking with you. So, he took all of it and drove away not leaving anything. O Allah! If I had done so, to please You, then relieve us from this distress. So the rock moved aside, and they got out walking freely. (Bukhari)  
 
 
 
previous   Next