Muntakhab Hadith

 
 
SIFAT
Ikram-ul-Muslim  
SECTION
Rights of Muslims  
Type
Hadith  
SERIAL NUMBER
177  
الحديث فى العربى
عَنْ أَبِىْ هُرَيْرَةَ رَضِىَ اللهُ عَنْهُ قَالَ : سَمِعْتُ رَسُوْلَ اللهِ ﷺ يَقُوْلُ : كَانَ رَجُلاَنِ فِىْ بَنِىْ إِسْرَئِيْلَ مُتَوَا خِيَيْنِ ، فَكَانَ أَحَدُهُمَا يُذْنِبُ وَالآخَرُ مُجْتَهِدٌ فِى الْعِبَادَةِ ، فَكَانَ لاَ يَزَالُ الْمُجْتَهِدُ يَرَى الآخَرَ عَلَى الذَّنْبِ فَيَقُوْلُ : أَقْصِرْ ، فَوَجَدَهُ يَوْمًا عَلٰى ذَنْبٍ فَقَالَ لَهُ : أَقْصِرْ ، فَقَالَ : خَلِّنِىْ وَرَبِّىْ أَبُعِشْتَ عَلَىَّ رَقِيْبًا ؟ فَقَالَ : وَاللهِ ! لاَ يَغْفِرُ اللهَ لَكَ أَوْلاَ يُدْخِلُكَ اللهُ الْجَنَّةَ ، فَقُوْبِضَ أَرْوَاحُهُمَا ، فَاجْتَمَعَا عِنْدَ رَبِّ الْعَالَمِيْنَ ، فَقَالَ لِهٰذَا الْمُجْتَهِدِ : أَكُنْتَ بِىْ عَالِمًا أَوْ كُنْتَ عَلٰى مَا فِىْ يَدِىْ قادِرًا ؟ زَقَالَ لِلْمُذْنِبِ : إِذْهَبْ فَادْخُلِ الْجَنَّةَ بِرَحْمَتِىْ وَقَالَ لِلاَخَرِ : اذْهَبُوْابِهِ إِلَى النَّارِ . ( رواه ابودؤد ، باب فى النهى عن البغى ، رقم : )  
হাদিস বাংলা
হযরত আবু হুরায়রা (রাযিঃ) বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এরশাদ করিতে শুনিয়াছি, বনী ইসরাঈলে দুই বন্ধু ছিল । তাহাদের মধ্যে একজন গুনাহ করিত এবং দ্বিতীয় জন খুব এবাদত করিত । এবাদতকারী যখনই গুনাহগারকে গুনাহ করিতে দেখিত তখন তাহাকে বলিত, তুমি গুনাহ হইতে ফিরিয়া যাও । একদিন তাহাকে গুনাহ করিতে দেখিয়া বলিল, তুমি গুনাহ হইতে ফিরিয়া যাও । উত্তরে সে বলিল, আমাকে আমার রবের উপর ছাড়িয়া দাও (আমি বুঝিব এবং আমার রব বুঝিবে) । তোমাকে কি আমার উপর পাহারাদার বানাইয়া পাঠানো হইয়াছে? আবেদ (রাগান্বিত হইয়া) বলিল, আল্লাহর কসম! আল্লাহ তায়ালা তোমাকে মাফ করিবেন না । অথবা ইহা বলিয়াছে যে, আল্লাহ তায়ালা তোমাকে জান্নাতে দাখেল করিবেন না । অতঃপর দুইজনই মারা গেল এবং (রূহজগতে) উভয়েই আল্লাহ তায়ালার সামনে একত্রিত হইয়া গেল । আল্লাহ তায়ালা আবেদকে জিজ্ঞাসা করিলেন, তুমি কি আমার সম্পর্কে জানিতে (যে, আমি মাফ করিব না)? অথবা মাফ করার বিষয়টি যাহা আমার ক্ষমতায় রহিয়াছে উহার উপর কি তোমার ক্ষমতা ছিল (যে, তুমি মাফ করা হিইতে আমাকে ফিরাইয়া রাখিবে?) আর গুনাহগার লোকটিকে বলিলেন, আমার রহমতে জান্নাতে চলিয়া যাও । (কেননা সে রহমতের আশাবাদী ছিল ।) আর দ্বিতীয় ব্যক্তি অর্থাৎ আবেদ সম্পর্কে (ফেরেশতাগণকে) বলিলেন, তাহাকে জাহান্নামে লইয়া যাও । ফায়দাঃ উক্ত হাদীসের উদ্দেশ্য এই নয় যে, গুনাহের উপর সাহস করা হইবে । কেননা, এই গুনাহগার লোকটির ক্ষমা আল্লাহ তায়ালার মেহেরবানীতে হইয়াছে । ইহা জরুরী নয় যে, প্রত্যেক গুনাহগারের সহিত একই আচরণ করা হইবে । কেননা নিয়ম তো ইহাই যে, গুনাহের উপর শাস্তি হয় । উক্ত হাদীসের উদ্দেশ্য ইহাও নয় যে, গুনাহ ও নাজায়েয কাজে বাধা দেওয়া হইবে না । কেননা, কুরআন ও হাদীসের শত শত জায়গায় গুনাহের কাজে বাধা দেওয়ার হুকুম রহিয়াছে এবং বাধা না দেওয়ার উপর ধমকি আসিয়াছে । অবশ্য অর্থ এই যে, নেককার না আপন নেকীর উপর ভরসা করিবে, আর না বদকারের ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত দিবে, আর না তাহাকে তুচ্ছ জ্ঞান করিবে ।   
HADITH ENGLISH
Abu Hurairah Radiyallahu 'anhu narrates: I heard Rasullullah Sallallahu 'alaihi wasallam saying: There were two friends in Bani Israil; one of them was sinful and the other was devout. Whenever the devout saw his friend committing a sin, he would ask him: Refrain from it. One day, when he saw him committing a sin, he asked him to desist from it; the sinful said: Leave me to my Rabb. Have you been sent as my supervisor? The devout-one said: I swear by Allah! Allah will not forgive you or you will not be sent to Paradise. When both of them died, they were raised before Rabb-al- ' Alamin. Allah asked the devout: Did you know about Me or did you acquire My authority and stop Me from forgiving the sinful? So, Allah said to the sinful: Go and enter into Paradise by grace of My Mercy, and commanded (the angels) about the devout: Take him to the Fire. (Abu Dawud)  
 
 
 
previous   Next